ক্যাম্পাসলিড নিউজ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আন্তরিকতার অভাব রয়েছে বলে মনে করেন ইবি কর্মকর্তারা

ইবি প্রতিনিধি:

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) কিছু কিছু অফিসের প্রতি শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ আছে। আমি তাদের আর্তনাদ শুনেছি। তাদের অভিযোগ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ঠিকমতো অফিসে থাকে না। আমরা কর্মকর্তা সমিতির পক্ষ থেকে তাদেরকে নিয়মিত অফিস করার জন্য বলতেছি। কিন্তু সমিতি আর প্রশাসন আলাদা জিনিস। যারা অলসতা করে ক্লাস এবং অফিসে আসেন না, তাদেরকে শ্রেণিকক্ষে এবং অফিসে ফিরিয়ে আনার জন্য পদক্ষেপ নেওয়া এবং পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসে শিক্ষার্থীদের যে সমস্যা সে বিষয়ের সমাধানে ব্যাপারে প্রশাসনকে, উপাচার্যকে বারবার বলেও আমরা ব্যার্থ হয়েছি। এই প্রশাসন একদমই আন্তরিক না। তাদের আন্তরিকতার অভাব রয়েছে।’

সোমবার (৭ আগস্ট) বেলা ১২টায় প্রশাসন ভবনের ৩য় তলার সভাকক্ষে পোষ্য কোটায় শর্তহীন ভর্তিসহ ১২ দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের চলমান আন্দোলন নিয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নোত্তর পর্বে এসব কথা বলেন ইবি কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি এ টি এম এমদাদুল আলম।

ইবি কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি এ টি এম এমদাদুল আলম বলেন, ‘আমরা প্রশাসনকে, উপাচার্য স্যারকে বারবার বলেছি আপনারা আসেন। অফিসগুলো ভিজিট করুন। অফিসে এসে আপনি যখন আমাকে অফিসে পাবেন না তখন আমার মতো দুই একজনকে শোকজ করেন, এটার দেখাদেখি দেখবেন এমনিতেই সবাই ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু প্রশাসন তো আর সেটা করছে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিসে যারা সার্টিফিকেট লিখতেছে, তারা কিন্তু ওই কাজের জন্য নিয়োগ পাননি। তাদের লেখা সুন্দর বলেই ওদেরকে লিখতে দিয়েছে। দেখা যায় তাদেরকে শিক্ষার্থীরা মুখে মুখে নাম, সিজিপিএ বলছে আর তারা লিখতেছে। এভাবে হাতে হাতে কাজ করতেছেন। ছাত্রদের উপকারের জন্যই তারা করতেছে, কিন্তু সেটা বৈধ নয়। অন্যদিকে কম্পিউটার অপারেটরের জন্য যাদেরকে চাকরি দিচ্ছে, তারা কম্পিউটার চালাতে পারেন না। এগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের ব্যর্থতা।’

সংবাদ সম্মেলনে কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি এ টি এম এমদাদুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিদ হাসান মুকুট সাক্ষরিত ন্যায্য অধিকার বাস্তবায়ন কমিটির লিখিত বক্তব্যের মাধ্যমে তাদের দাবিসমূহ তুলে ধরেন। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কমিটির আহবায়ক এবং কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি এ টি এম এমদাদুল আলম। এছাড়াও সংশ্লিষ্ট দাবিসমূহের বিষয়ে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন তিনি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page