ক্যাম্পাসলিড নিউজ

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সতর্ক অবস্থানে খুবি কর্তৃপক্ষ

সাজ্জাদুল ইসলাম আজাদ, খুবি প্রতিনিধি:

ডেঙ্গুর ভয়াবহ সংক্রমণে দেশবাসী যখন দিশেহারা তখনই বেশ সতর্কতার সাথে ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবিলা করছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় (খুবি) কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক, প্রশাসনিক ভবন এবং আবাসিক হলগুলোতে নিয়মিত মশা নিধনের জন্য ফগার মেশিন দিয়ে ওষুধ ছিটানো হচ্ছে।

ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে এ বছর সারাদেশে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন মোট ৮২ হাজার ৫০৬ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৩৮৭জন। এর মধ্যে শুধুমাত্র চলতি মাসেই ১৩৬ জন মারা গেছেন। তবে খুবির মেডিকেল সেন্টার থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী এখন পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০০ (আপডেট) জন শিক্ষার্থীর ডেঙ্গু পরীক্ষা করলেও কারোর ডেঙ্গু পজিটিভ শনাক্ত হয়নি। এছাড়াও বিভিন্ন ডিসিপ্লিনের (বিভাগ) শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলেও কারোর ডেঙ্গু শনাক্তের তথ্য পাওয়া যায়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ক্যাম্পাসের বিভিন্ন ঝোপ-ঝাড় প্রতিনিয়ত পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করা হচ্ছে। এছাড়াও মশক নিধনের জন্য ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থান শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ প্রশাসনিক ভবন, সকল একাডেমিক ভবন, ড্রেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল, উপাচার্যের বাসভবন, আবাসিক কোয়ার্টারসমূহের আশপাশসহ বিভিন্ন জায়গায় ফগার মেশিনের মাধ্যমে নিয়মিতভাবে মশক নিধন ওষুধ ছিটানো হচ্ছে এবং হল কর্তৃপক্ষ আবাসিক নিয়মিতভাবে হলসমূহে মশক নিধন কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে।

ডেঙ্গু পরিস্থিতি মোকাবেলার ব্যাপারে পদক্ষেপ জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. তানজিল সওগাত জানান, “ডেঙ্গু পরিস্থিতির সারাদেশে প্রকট আকার ধারণ করার শুরুতেই খুবির উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের নিয়ে জরুরী বৈঠক করে ডেঙ্গু পরিস্থিতিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে মোকাবিলা করতে দিকনির্দেশনা দেন। এরপরে তারা নিজেদের হলের শিক্ষার্থীদের সাথে করণীয় নিয়ে মতবিনিময় সভাও করেছেন।”

অপরাজিতা হলের ৩য় বর্ষের আবাসিক ছাত্রী মারিয়া কিপ্তিয়া বলেন, “আমাদের প্রভোস্ট ম্যাম মেয়েদের নিরাপত্তা ইস্যু, বিশেষ করে ডেঙ্গু নিয়ে বেশ সতর্ক।”

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page