ক্যাম্পাসলিড নিউজ

রাবিতে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার অপরাধীদের রায় কার্যকরের দাবিতে মানববন্ধন

রাবি প্রতিনিধি:

২১ আগস্ট ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার অপরাধীদের বিচারের রায় কার্যকরের দাবিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (২১ আগস্ট) বেলা ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ সিনেট ভবনের সামনে এ মানববন্ধন শুরু হয়।

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল ইসলাম বলেন, ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলা করার প্রধান উদ্দেশ্য ছিল শেখ হাসিনা কে হত্যার মাধ্যমে দেশকে পাকিস্তানের দিকে নিয়ে যাওয়া। তারা চেয়েছিল শেখ হাসিনাকে হত্যা করে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে স্তমিত করে দেশকে অন্ধকারে রেখে ফায়দা লুটে নিতে। কিন্তু দলের নেতাকর্মী সেইদিন মানব ঢাল তৈরি করে আমাদের প্রাণের স্পন্দন কে রক্ষা করেছিল। জোট সরকার সেইদিন আহতদেরকে হাসপাতালে নিয়ে যেতেও বাধার সৃষ্টি করেছিল। তারা চায় এ দেশকে অন্ধকারের অমানিশায় ডুবে রাখতে। কিন্তু তারা তা করতে পারেনি।

তিনি আরও বলেন, তারা চায়নি বাংলাদেশের মানুষ স্বাধীন হোক। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। সময় এসে গেছে বাংলার মানুষের একতাবদ্ধ হওয়ার। বাংলার মানুষ সচেতন হয়েছে। ২১ আগস্ট হামলা ইতিহাসের শেষ না। এমন ঘটনা আবারও হতে পারে। ইতিহাসের এই নিকৃষ্টতম ঘটনার বিচারের রায় কার্যকর এখন সময়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দাবি।

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, ২০০৪ সাল ১৯৭৫ সালেরই ঘটনারই পুনরাবৃত্তি। বঙ্গবন্ধু কন্যা ১৯৮১ সালে দেশে এসেই বাংলাদেশের মানুষদের জন্য কাজ করা শুরু করেন। বিরোধীপক্ষ এটা পছন্দ করেনি। তারা হিংসার বশবর্তী হয়ে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ইতিহাসের সবচেয়ে নারকীয় হামলা চালিয়েছিল। জোট সরকার কখনো দেশের সার্বভৌমত্ম চায় নি, তারা এখনো চায় না বাংলাদেশ এগিয়ে যাক। তবে বাংলাদেশের মানুষ জেগেছে। এখন শেখ হাসিনাকে রক্ষার দায়িত্ব জনগণ নেবে। যেমন করে ২০০৪ সালের ২১ আগস্টে দলের নেতাকর্মীরা মানবপ্রাচীর তৈরি করে নেত্রীকে রক্ষা করেছিল। দেশের মানুষ চায় ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার সাথে জড়িতদের যতদ্রুত সম্ভব বিচারের রায় আওতায় আনার জোর দাবি জানান।

প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের সাচিবিক সদস্য অধ্যাপক এ এইচ এম কামরুল আহসান এর সঞ্চালনায় এসময় আরও বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাদিকুল ইসলাম সাগর, বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক পুরনজিত মহালদার, আইন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক হাসিবুল আলম প্রধান, প্রাণরসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. রেজাউল করিম। এতে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের আহবায়ক অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আল মামুন।

এছাড়া মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম সাউদ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের নেতৃবৃন্দসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় একশত শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page