ক্যাম্পাসলিড নিউজ

১২ দফা দাবিতে চবির আবাসিক হলে ছাত্রলীগের তালা

চবি প্রতিনিধি:

ডাইনিংয়ে খাবারের নামে বিষ খাওয়ানো বন্ধ হোক, সোহরাওয়ার্দী হল মাঠের সংস্কার চাই, ডাইনিং ও ক্যাফেটেরিয়ায় খাবারের মান বৃদ্ধি করুন। এমন আরও অনেক দাবি সংবলিত ফেস্টুন হাতে ১২ দফা দাবিতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সোহরাওয়ার্দী হলে তালা ঝুলিয়ে আন্দোলন করেছেন ছাত্রলীগের উপগ্রুপ বিজয়ের একাংশের সদস্যবৃন্দ। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে হল গেটে তালা ঝুলিয়ে আন্দোলন শুরু করেন বিজয়ের সদস্যবৃন্দ।

সোমবার (২৮ আগস্ট) দুপুর সাড়ে ১১টার দিকে হলের প্রশাসনিক কক্ষে তালা দিয়ে এবং হলের সামনে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করেন। পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে শিক্ষার্থীদের দাবি পুরণের আশ্বাস দিলে দুপুর একটার দিকে আন্দোলনকারীরা তালা খুলে দেন।

শাখা ছাত্রলীগের উপ-শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক আফ্রিদি রহমান নিটো বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমরা আমাদের সমস্যার কথা বলে আসছি। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের জন্য হলেও শিক্ষার্থীদের কোনো কিছুই পূরণ করা হচ্ছে না। ডাইনিং, ক্যাফেটেরিয়ার অবস্থা খুবই খারাপ ওখানে খাওয়াই যায় না। এছাড়া আমাদের রিডিং রুম, কমন রুম কোথাও আসবাব পত্র নেই। একটু বৃষ্টিতেই হলের সামনে পানি জমে থাকে। এতে করে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি আমরাও বিপদে পড়ি। এজন্য প্রশাসনকে আমাদের দাবিগুলো পূরণের নিশ্চয়তা দিতে হবে।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থী মুনতাসীর সিয়াম বলেন, আমাদের প্রত্যেকটি দাবি যৌক্তিক। হলের সামনের মোড়টা ৩ রাস্তার মোড় কিন্তু এখানে কোনো স্পিড ব্রেকার নাই। এতে করে শিক্ষার্থীদের জীবনের ঝুঁকি থাকে সবসময়। আমাদের উল্লিখিত দাবিগুলো পূরণ করা সময়ের দাবি।

দাবীগুলো হলো:
১. হলের অনেক রুমে খাট, টেবিল, চেয়ার ও আলমারির সংকট। (দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে)। ২. দীর্ঘদিন ধরে চলা হলের রাস্তার সংস্কার কর্মকাণ্ডের দ্রুত সমাপ্ত করতে হবে। ৩. ডাইনিং এবং ক্যাফেটেরিয়ার খাবারের খুবই বাজে অবস্থা দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে এর মান বৃদ্ধি করতে হবে। ৪. হলে পর্যাপ্ত সুপীয় পানির সংকট (দ্রুত এই সংকট দূর করতে হবে)। ৫. হলের ওয়াফাই ঠিকমতো চলে না। নিরবিচ্ছিন্ন ওয়াইফাই সংযোগের ব্যবস্থা করতে হবে।৬. হলের ওয়াশরুমের সমস্যার দ্রুত সমাধান করতে হবে। ৭. সোহরাওয়ার্দী হলের মাঠের সংস্কার এবং দ্রুত খেলাধুলার সরঞ্জামের অপ্রতুলতা নিরসন করতে হবে। ৮. শিক্ষার্থীদের চলাচলের নিরাপত্তার জন্য হলের সামনের রাস্তায় স্পিড ব্রেকার দিতে হবে। ৯. রিডিং রুমে পর্যাপ্ত বই, চেয়ার, টেবিল ও নিরবচ্ছিন্ন আলো ও ফ্যানের ব্যবস্থা করতে হবে। ১০. টিভির রুমের বেঞ্চ ও গেস্ট রুমের সোফার সংকট নিরসন করতে হবে। ১১. হলের পানির হাউজ ব্যবহারের উপযোগী করতে হবে। ১২. পুরাতন ভবনে শিক্ষার্থীদের জীবনের হুমকি রয়েছে। তাই নতুন এক্সটেনশন নির্মাণ করতে হবে।

এ বিষয়ে হলের প্রভোস্ট ড. শিপক কৃষ্ণ দেব নাথ ডেইলি দর্পবকে বলেন, শিক্ষার্থীদের সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page