ক্যাম্পাস

শাবিপ্রবির বাংলা বিভাগে নবীনদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হলো ‘অভ্যাগত সম্ভাষণ’

শাবিপ্রবি প্রতিনিধি:

“নব আনন্দে জাগো আজি নবরবিকিরণে, শুভ্র সুন্দর প্রীতি-উজ্জ্বল নির্মল জীবনে” প্রতিপাদ্য বিষয়কে ধারণ করে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) বাংলা বিভাগের ২০২২-২৩ সেশনের নবীন শিক্ষার্থীদের নিয়ে ‘অভ্যাগত সম্ভাষণ’ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩১ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১০টা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন ‘বি’ এর ৩০৪ কক্ষে নবাগত শিক্ষার্থীদের এই ‘অভ্যাগত সম্ভাষণ’ সম্পন্ন হয়।

এসময় নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্য বক্তব্য দেন বিভাগের প্রধান ও বাংলা সমিতি ও অনুষ্ঠানের সভাপতি অধ্যাপক ড. ফারজানা সিদ্দিকা, বাংলা সমিতির কোষাধ্যক্ষ সহযোগী অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর আলম, অধ্যাপক ড. আশ্রাফুল করিম, অধ্যাপক ড. শরদিন্দু ভট্টাচার্য, অধ্যাপক ড. রেজাউল ইসলাম, অধ্যাপক ড. ফয়জুল হক, অধ্যাপক ড. জফির উদ্দিন, সহকারী অধ্যাপক মো. মাসুদ পারভেজ, সহকারী অধ্যাপক আবু বকর সিদ্দিক, প্রভাষক মাফরুজা আক্তার, প্রভাষক মুশরফা বেগম মিসু এবং বাংলা সমিতির সহ-সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সমিতির অন্য সদস্যরা।

এবিষয়ে ‘অভ্যাগত সম্ভাষণ’ শব্দটির উদ্ভাবক অধ্যাপক ড. আশ্রাফুল করিম বলেন, নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ অনুষ্ঠানের নাম সাধারণত ইংরেজি শব্দ ‘ওরিয়েন্টেশন’ বলা হয়ে থাকে। কিন্তু বাংলা ভাষায় এর প্রতিশব্দ হিসেবে ‘অভ্যাগত সম্ভাষণ’ শব্দটি ব্যবহার করা যেতে পারে। যা অত্যন্ত সুন্দর ও শ্রুতি মধুর শব্দও বটে। অনেকেরই শব্দটির বিষয়ে জানা নেই। যেহেতু আমরা বাঙালি এবং ওরিয়েন্টেশন শব্দটির পরিবর্তে ‘অভ্যাগত সম্ভাষণ’ শব্দটি ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে তাই নবীন শিক্ষার্থীদের এই বরণ অনুষ্ঠানের নাম ‘অভ্যাগত সম্ভাষণ’ দেয়া উপযুক্ত বলে মনে করি। আর শব্দটি আমি গতকাল সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে দেওয়া নবীন বরণ অনুষ্ঠানের ব্যানারে ‘ওরিয়েন্টেশন’ শব্দটি দেখে চিন্তা শুরু করি এবং অন্য শিক্ষকদের সাথে আলোচনা করলে তারাও শব্দটির বিষয়ে যথোপযুক্ত হয়েছে বলে মতামত প্রকাশ করেন। তাই বাংলা ভাষার জন্য জীবন দেয়া শহিদের সম্মানার্থে শব্দটি যেন পরবর্তীতে বিভিন্ন ব্যানারে উল্লেখ করা হয় সেই অনুরোধ জানান এই অধ্যাপক।

এসময় সমিতির সভাপতি বলেন, জীবনে চলতে গেলে সুশৃঙ্খল মাপকাঠির ভিত্তিতে চলা উচিৎ, কিন্তু আমরা নানা মাত্রিক অস্থিরতার মধ্য দিয়ে জীবনকে চালায়। ফলে আমরা দেখতে পারি নানামাত্রিক উত্থানপতন। নবীনদের উদ্দেশ্য বলতে চাই, তোমার বিশ্ববিদ্যালয়ে এসেছো অনেক কিছুই পাবা, সব নেবার দরকার নেই। যা প্রয়োজন তাই নিও এবং অনাগত জীবন উজ্জ্বল হোক সেই প্রত্যাশা করি।

অনুষ্ঠানে নবীনদের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা, মানবিকবোধসম্পন্ন মানুষ হওয়া, জীবনের লক্ষ্য স্থির করা, ভালোমন্দ বুঝে চলার এবং নিজেকে সফল ও সাবলম্বী করে গড়ে তোলার আহ্বান ব্যক্ত করেন শিক্ষকরা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page