ক্যাম্পাস

দাবি আদায়ে এবার লাগাতার কর্মবিরতিতে ইবির কর্মকর্তারা

ইবি প্রতিনিধি:

পোষ্যকোটায় ভর্তিতে শর্ত শিথিল করাসহ ১৬ দফা দাবিতে শনিবার (২ সেপ্টেম্বর) থেকে পূর্ণ কর্মবিরতি পালন করছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।

শনিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তনে দাবি আদায়ে গঠিত ‘ন্যায্য অধিকার বাস্তবায়ন কমিটি’র বিশেষ সভায় দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তারা। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস পরীক্ষা, সনদ প্রদান, নম্বরপত্র উত্তোলন ও প্রয়োজনীয় সার্বিক বিষয়সহ জরুরী বিভাগসমূহ এই কর্মসূচীর আওতামুক্ত রয়েছে।

জানা যায়, দাবিসমূহ আদায়ে গত ২৬ জুলাই থেকে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত পাঁচ ঘন্টার কর্মবিরতি পালন করে আসছিলেন আন্দোলনকারীরা। ঐসময় দাবি মানা না হলে আগস্ট মাস শেষে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি প্রদান করেছিলেন তারা। এরই প্রেক্ষিতে গতকাল সভায় ২ সেপ্টেম্বর থেকে লাগাতার পূর্ণ কর্মবিরতি পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়।

এর আগে গত ৭ আগস্ট চলমান আন্দোলন নিয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে ১২ টি দাবির বিষয়ে উল্লেখ করা হলেও এখন নতুন করে চারটি দাবি যোগ করা হয়েছে। সকল দাবিসমূহ উল্লেখ করে গতকাল উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর শেখ আব্দুস সালাম বরাবর একটি স্মারকলিপিও প্রদান করেছেন তারা।

স্মারকলিপিতে উল্লেখিত তাদের উল্লেখযোগ্য দাবিসমূহ হলো- ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় চাকুরী হতে অবসরের বয়সসীমা ৬২ বছর করতে হবে, সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত মোতাবেক কর্মকর্তা কর্মচারীদের সেশন বেনিফিট বহাল রাখা, আই. সি. টি সেলের উপ-রেজিস্ট্রার হাসিনা মমতাজ এর চাকুরী হতে অব্যাহতির প্রদানের সিদ্ধার প্রত্যাহার, পোষ্যকোটার ভর্তিতে শর্ত শিথিল করা, পরীক্ষা সংক্রান্ত কাজে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের পারিশ্রমিক বৃদ্ধি করা, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় গাড়ীচালকদেরকে সাত ধাপের সুবিধা বাস্তবায়ন করা, অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যায় শিক্ষাগত যোগ্যতা বৃদ্ধির কারণে কর্মচারীবৃদ্ধের অনার্জিত ইনক্রিমেন্ট প্রদান করা এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য যুগোপযোগী অর্গানোগ্রাম প্রণয়ন করা।

চলমান আন্দোলনের বিষয়ে ন্যায্য অধিকার বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক ও কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি এ টি এম এমদাদুল আলম বলেন, ‘আমরা আমাদের ন্যায্য দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য আন্দোলনে নেমেছি। এ প্রশাসন দাবি মেনে নেয় কিন্তু বাস্তবায়নে কোন পদক্ষেপ গ্রহণ করে না। আগস্ট মাস শোকের মাস বলে আমরা তখন কোনো কঠোর কর্মসূচি গ্রহণ করিনি। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের এই আন্দোলন চলবে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page