ক্যাম্পাস

শেষ হলো দুই দিনব্যাপী আয়োজিত চবির জাতীয় আইন সম্মেলন

চবি প্রতিনিধি:

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) আইন অনুষদের উদ্যোগে প্রথমবারের মতো আয়োজিত জাতীয় আইন সম্মেলন শেষ হয়েছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) প্রথমবারের শুরু হয়েছে জাতীয় আইন সম্মেলন’২০২৩ । দেশে প্রথমবারের মতো দু’দিনব্যাপী (১৬ ও ১৭ সেপ্টেম্বর) এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সাড়ে ১০টায় ‘পরিবর্তনশীল বিশ্বে আইন’ প্রতিপাদ্যকে সামন রেখে শুরু হয় প্রথম দিনের অধিবেশন। এতে দেশি-বিদেশি প্রায় ৫০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ৭০টি গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। এছাড়াও ৩০জন প্যানেল স্পিকার ছিলেন।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারক বোরহানউদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চবি আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ শাহীন চৌধুরী এবং মুখ্য আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. শরিফ ভূঁইয়া।

আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আবদুল্লাহ আল ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের সম্মানিত অতিথি হিসেবে ছিলেন চবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। আরও উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক বেনু কুমার দে এবং সিনিয়র জেলা ও সেশন জজ ড. আজিজ আহমেদ ভূঁইয়া।

চবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার বলেন, দেশকে এগিয়ে নিতে হলে আইনের শাসন আমাদের প্রতিষ্ঠা করতে হবে । আমি আশা করি, দেশ ও জাতি এবং আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য আজকের এ আইন সম্মেলন ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।

ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ বলেন, দেশে প্রথমবারের মতো এ সম্মেলন হচ্ছে, বিষয়টি খুবই চমকপ্রদ। আইন শিক্ষা এবং শেখানোর পদ্ধতিতে অনেক পরিবর্তন নিয়ে আসতে হবে। দেশে মেধা যাচাই করা হয় মুখস্থবিদ্যার ভিত্তিতে। কিন্তু সমস্যা সমাধান, ব্যবস্থাপনার জ্ঞানও গুরুত্বপূর্ণ, যা অন্যান্য দেশে শেখানো হয়। বর্তমান সময়ের আলোকে আমাদের শিক্ষাদান পদ্ধতিতে পরিবর্তন প্রয়োজন।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ড. শরীফ ভূঁইয়া বলেন, মানবজীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে এক ধরনের শৃঙ্খলা মেনে চলতে হয়। বিভিন্ন ধরনের আইন সে শৃঙ্খলা মেনে চলতে সাহায্য করে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মানবজীবনে বাহ্যিক পরিবর্তন করে না বরং মানব সমাজের সামগ্রিক পরিবর্তনে ভূমিকা রাখে। সারা বিশ্বে আইনের শাসনে পরিবর্তন এসেছে। অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি আইনের শাসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। আইনের শাসন ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির জন্য সমাজে গণতন্ত্রের চর্চা অনিবার্য।

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারক বোরহানউদ্দিন বলেন, আমি আইন বিভাগের একজন শিক্ষার্থী হিসেবে গর্বিত। কারণ এ বিভাগের শিক্ষার্থীরা গত কয়েকবছর খুব ভালো ফলাফল করছে। আইন হচ্ছে ব্যক্তির কমনসেন্স (সাধারণ জ্ঞান,কাণ্ডজ্ঞান)। ব্যক্তি তার কমনসেন্স ব্যবহার না করলে আইন তার কার্যকারিতা হারাবে। কিন্তু বর্তমানে আমরা বিভিন্ন সমস্যার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। জলবায়ু পরিবর্তন, মানব পাচার, সাইবার থ্রেট, রোহিঙ্গা ক্রাইসিসসহ আরো অনেক কিছু।

তিনি বলেন, পরিবর্তনশীল বিশ্বের সাথে এগিয়ে যেতে আমাদের আইনগুলো সংশোধন করা প্রয়োজন, যাতে বর্তমান সমস্যার সমাধান সহজ করা যায়। এছাড়াও আইনের শাসন নিশ্চিত করতে হবে।

জাতীয় আইন সম্মেলনের সমাপনী বক্তব্যে আইন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আব্দুল্লাহ আল ফারুক বলেন, এ সম্মেলন আইনশিক্ষার্থী এবং আইন গবেষকদের মাঝে নতুন উদ্দীপনার জোগাবে। এরকম গবেষণাধর্মী সম্মেলন আইন শিক্ষা ও গবেষণার দ্বার উন্মুক্ত করতে সাহায্য করবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page