ক্যাম্পাসলিড নিউজ

সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনায় জড়িতদের শাস্তির দাবিতে চবিসাসের মানববন্ধন

চবি প্রতিনিধি:

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) সাংবাদিকদের ওপর একের পর এক হামলার ঘটনায় জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবিতে যৌথভাবে মানববন্ধন করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (চবিসাস) এবং চিটাগং ইউনিভার্সিটি এক্স জার্নালিস্ট নেটওয়ার্ক (সিইউজেএন)।

মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনিক ভবনের সামনে শুরু হয় মানববন্ধনটি।

চবি সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইমাম ইমুর সঞ্চালনা ও চবিসাস সভাপতি মাহবুব এ রহমানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন চবিসাসের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নবাব আব্দুর রহিম ও সদস্য মারজান আক্তার।

চবিসাসের সাবেক সাধারণ সম্পাদক দৈনিক আজকের পত্রিকার চট্টগ্রাম ব্যুরোচিফ ও সিইউজেএনের সাধারণ সম্পাদক সবুর শুভ বলেন, গত দুই বছরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকদের ওপর বেশ কয়েকবার হামলা হয়েছে। সাংবাদিকদের ওপর হামলা নতুন কোনো ঘটনা নয়। হামলাকারীরা বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়ানোর পরিবর্তে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে মানবিক আচরণ পেয়েছে। মনে রাখবেন, আমরা লিখতে যেমন জানি, প্রতিবাদ জানাতেও জানি।

যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক খন্দকার আলী আর রাজি বলেন, মারজান আক্তার, দোস্ত মোহাম্মদ, মোশাররফ শাহ- একে একে আমাদের বিভাগের অনেক শিক্ষার্থী ছাত্রলীগের হামলার শিকার হয়েছেন। প্রশাসন ন্যূনতম দায়িত্ব পালন করতে পারেনি। আমার মনে হয় প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা বরং খুশি হয়েছেন সাংবাদিকদের মারধর করায়। কারণ সাংবাদিকরা প্রশাসনের বিভিন্ন দুর্নীতি অনিয়ম তুলে ধরছে। এ সবকিছুর পেছনে অন্যতম কারণ হলো এখানে ভিসি, প্রো-ভিসি এগুলা হঠাৎ নাজিল হয়। দলীয় লেজুড়বৃত্তি না করে নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে যদি প্রশাসনের দায়িত্বে আসতেন তারা। তাহলে তাদের দায়বদ্ধতা থাকতো। আমরা মোশাররফের ওপর হামলাকারীদের বিচারের পাশাপাশি প্রশাসনও যেন নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে হয়, সেই প্রত্যাশা করি।

সিইউজেএনের সভাপতি, চবিসাসের সাবেক সভাপতি ও দৈনিক আমাদের সময়ের চট্টগ্রাম ব্যুরো চিফ হামিদউল্লাহ বলেন, এ ক্যাম্পাসে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে ব্যবহার করে ছাত্রলীগ নৈরাজ্য চালাচ্ছে। বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী ও জয় বাংলা স্লোগানকে ব্যবহার করে নিয়োগ থেকে শুরু করে সকল অনিয়মে এদের হাত রয়েছে। শিবির থেকে ছাত্রলীগ কারও চরিত্র পরিবর্তন হয়নি। আজকে যারা ছাত্রলীগের নামে বিভিন্ন নৈরাজ্য চালাচ্ছে, এদের খবর নিয়ে দেখেন এরা আগে কোন দলের অনুসারী ছিলো।

তিনি আরও বলেন, আজকে অন্যায় অনিয়মকে নিয়ে সাংবাদিকরা লিখছে বলেই তাদের ওপর হামলা হচ্ছে। ছাত্রলীগের মতো একটি সংগঠনের সভাপতি, যার কি-না ১২-১৪ বছর আগে ছাত্রত্ব শেষ। পৃথিবীর কোনো দেশে সাংবাদিকদের ওপর এমন হামলার নজির নেই। আমরা এরকম প্রতিবাদে আর দাঁড়াতে চাই না। আগামীতে আমরা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের বাড়ির সামনে দাঁড়াবো।

যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ এলামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ডেইলি স্টারের ব্যুরো চিফ শিমুল নজরুল ইসলাম বলেন, প্রশাসনের দলীয়করণ এমন পর্যায়ে দাঁড়িয়েছে, উনারাও কথা বলতে এবং ব্যবস্থা নিতে সাহস পান না। খুব বেশিদিন নেই, যখন আপনাদের ওপরও এমন হামলা চালাতে দ্বিধা করবে না তারন। আপনারা ক্ষমতা আঁকড়ে রাখার জন্য এ উশৃংখলদের আশ্রয় প্রশ্রয় দিচ্ছেন। একদিন তারা আপনাদেরও মাথা ভেঙে দিবে। সেদিনও আমরা লিখবো।

দৈনিক সমকালের রিজিওনাল এডিটর সারোয়ার সুমন বলেন, এ ক্যাম্পাসে আমাদের আবেগ জড়িয়ে আছে। এখানে আমরাও সাংবাদিকতা করেছি। কিন্তু এমন মেরুদণ্ডহীন, নির্লজ্জ প্রশাসন আমরা কখনো দেখিনি। মারজান আক্তারের ঘটনায় কয়েক দফায় তদন্ত কমিটি করেও তারা ব্যবস্থা নিতে পারেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে বলতে চাই, আপনি বেশিদিন এ চেয়ারে থাকতে পারবেন না। তবে সম্মানের সঙ্গে যাবেন কি-না সেটা আপনার সিদ্ধান্ত। আপনি ছাত্রলীগের মাথা না হয়ে সকল শিক্ষার্থীর মাথা হোন। এমন শাস্তির ব্যবস্থা করুণ, যাতে ভবিষ্যতে কেউ সাংবাদিকদের গায়ে হাত তোলার সাহস না পায়।

যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. আলী আজগর চৌধুরী বলেন, গণমাধ্যম কর্মীরা সবসময় হামলা মামলার শিকার হচ্ছেন। মোশাররফের ওপর হামলা একেবারেই পরিকল্পিত। সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় নামকাওয়াস্তে শাস্তি হয়েছে। আপনি যদি শাস্তি দিতে ব্যর্থ হন, তাহলে আমরা বুঝে নেব আপনি তাদের পৃষ্ঠপোষকতা করছেন। এমনকি আমরা দেখেছি সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারীরা বহিষ্কার হয়েও পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে। এটা প্রশাসনের মদদ ছাড়া সম্ভব না। আজকে শিক্ষকরাও তাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করতে পারছে না। গণমাধ্যমকর্মীদের এ জায়গায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। আজকে অছাত্ররা হল ত্যাগ করেছে কি-না প্রশাসনকে সে প্রশ্নও করুন।

সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সিরাজ উদ দৌল্লাহ বলেন, আজকে সাংবাদিকদের মানববন্ধনে দাঁড়াতে হয়েছে। এটা বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা রাষ্ট্র সবার জন্য বিব্রতকর। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজ বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছে। মোশাররফ শাহের ওপর যে হামলা হয়েছে, এ ধরনের ঘটনার যাতে আর পুনরাবৃত্তি না হয়, সেই প্রত্যাশা করি। পাশাপাশি মানববন্ধন থেকে সাংবাদিকদের যে দাবি, এর সঙ্গে সম্পূর্ণ একাত্মতা পোষণ করছি। শুধুমাত্র মুখে না বলে, কাজে তা বাস্তবায়নের আহ্বান জানাচ্ছি প্রশাসনের প্রতি।

চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সাধারণ সম্পাদক ম. শামসুল ইসলাম বলেন, আজ যে মুহুর্তে আমরা এ ক্যাম্পাসে মানববন্ধন করছি, শিক্ষার্থীদের তখন ক্লাস রুমে থাকার কথা ছিলো। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম যখন সংবাদপত্রে দেখি, তখন আমরা খুশি হই। অপরদিকে যখন দেখি এ ক্যাম্পাসে আমাদের সংবাদকর্মীদের ওপর হামলার ঘটনা শিরোনাম হচ্ছে, তখন আমরা কষ্ট পাই। আমরা জানি না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কষ্ট পায় কি-না। আজকে আমাদের সহকর্মী মোশাররফ ছাত্রলীগের হামলার শিকার হয়ে হাসপাতালের বেডে বসে পরীক্ষা দিচ্ছে। যা কখনোই আমরা আশা করিনি। আজকে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ লোক দেখানো ব্যবস্থা নেয়। অথচ যার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে, তাদের বিভাগে শাস্তির নোটিশ যায় না। তারা অনায়াসে পরীক্ষায় অংশ নেন। আজকে বহিষ্কৃত, অছাত্ররা হলে অবস্থান করছে। এতে করে আপনাদের ব্যর্থতা সুস্পষ্ট হয়েছে। আপনারা যদি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হতে চান, তাহলে হতে পারেন। আপনার এ চেয়ার কিছুদিন পরে থাকবে না। কিন্তু আজকে যারা ক্যাম্পাস সাংবাদিক, তারা আরও বড় বড় সাংবাদিক হবে। তারা আপনাদের ছাড়বে না। আমরাও আপনাদের ছাড়বো না। মোশাররফের ওপর যারা হামলা চালিয়েছে, তাদের ক্যাম্পাসে বহিষ্কার করুন। যদি না পারেন, তাহলে প্রশাসনের চেয়ার ছেড়ে দিন। ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দকে বলতে চাই, আপনারা যদি সাংবাদিক নির্যাতনে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেন, তাহলে আপনারাও সাংবাদিকদের রোষানলে পড়বেন।

চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ও বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোরের ডেপুটি এডিটর তপন চক্রবর্তী বলেন, আপনারা নিজেরা নিজেরা মারামারি করেন, উপাচার্যের বাসভবনে ভাঙচুর চালান, এরপর আপনারা সাংবাদিকদের ওপরও হামলা চালান। আপনারা কি সত্যিই ছাত্রলীগ করেন কি-না আপনাদের আচরণ দেখে সেটা বোঝার উপায় নেই। আপনাদের অবস্থা তো শিবিরের চেয়েও খারাপ। আমি উপাচার্য মহোদয়ের উদ্দেশে বলতে চাই, আপনি কেন তাদের প্রশ্রয় দিচ্ছেন? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তো সাংবাদিকবান্ধব মানুষ। উনি তো কখনো এ ধরনের ঘটনা মেনে নেবেন না। আমরা জানতে পেরেছি আপনার ছত্রছায়ায় এখানে নিয়োগ বাণিজ্য, চাঁদাবাজিসহ নানান অনিয়ম হচ্ছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যদি এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে না পারেন, আমরা প্রয়োজনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাবো। তাই একদিনের মধ্যেই তাদের গ্রেফতারের ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় আমরা আরও কঠোর কর্মসূচী ঘোষণা করতে বাধ্য হবো। এসময় চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন সবসময়ের মতো আগামী দিনেও সাংবাদিকদের পাশে থাকার আশ্বাস দেন।

সমাপনী বক্তব্যে চবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মাহবুব এ রহমান বলেন, যারা মোশাররফ শাহ এর রক্ত ঝরিয়েছে, তারা দেশের সকল সাংবাদিকদের রক্ত ঝরিয়েছে। সাংবাদিকরা শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করে থাকে। আজকে সাংবাদিকরাই যদি নিরাপদ না হন, তাহলে এখানে শিক্ষার্থীরা কতটুকু নিরাপদ। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে বলতে চাই, প্রতিটি ঘটনায় শুধুমাত্র আশ্বস্ত করেছেন, অথচ পরবর্তীতে বিচারের নামে প্রহসন করেছেন। আজকে বহিস্কৃত সন্ত্রাসীরা ক্যাম্পাসে ঘুরে বেড়াচ্ছে, পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। এটা আপনাদেন ব্যর্থতা। আমরা আশা করবো মোশাররফসহ অতীতে সাংবাদিক নির্যাতনের সকল ঘটনায় প্রশাসন দৃষ্টান্তমূলত ব্যবস্থা নিয়ে এ কলঙ্কজনক অধ্যায়ের সমাপ্ত করবে।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সদস্য মোহাম্মদ আলী, চবিসাসের সাবেক সভাপতি সুজন ঘোষ, সৈয়দ বাইজিদ ইমন, ইমরান হোসাইন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক, তাসনীম হাসান, জোবায়ের চৌধুরী এবং সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল্লাহ রাকীব ও মিনহাজ তুহিন ও সাবেক সদস্য সুজয় চৌধুরীসহ আরও অনেকে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page