ক্যাম্পাসলিড নিউজ

ডেইলি দর্পণের তৃতীয় বার্ষিকীতে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের শুভেচ্ছা

নিজস্ব প্রতিনিধি:

আধার পেরিয়ে আলোর খোঁজে দেখতে দেখতে জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘ডেইলি দর্পন’ চার বছরে পদার্পণ করলো। বিগত তিন বছরে পাঠকের কাছাকাছি যাওয়ার চেষ্টা করেছে পোর্টালটি। চেষ্টা করেছে সাধারণ মানুষের সমস্যা সম্ভাবনা তুলে ধরতে। সেই চেষ্টার সহযাত্রী সম্মানিত পাঠকরাই বিচার করবেন দর্পণ কতখানি সফল হয়েছে। সারাদেশের অগনিত পাঠকের মধ্য থেকে কয়েকজনের মন্তব্য তুলে ধরছি আমরা।

ডেইলি দর্পণের আপোষহীন এবং সাহসী সাংবাদিকতার চার বছরে পদার্পনে চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সংশ্লিষ্টজনদের শুভেচ্ছা :

মো. সাখাওয়াত হোসেন (অধ্যাপক, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ) বলেন, ‘ডেইলি দর্পণ’ ৪ বছরে পদার্পণ করেছে জেনে আমি আনন্দিত। পত্রিকাটির সঙ্গে জড়িত সবাইকে আমার পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। বিগত বছরগুলোতে পত্রিকাটি যে সাহসিকতার সঙ্গে সংবাদ পরিবেশন করে এসেছে, ভবিষ্যতেও সেই ধারা অব্যাহত থাকবে বলে আমি আশাবাদী।

তিনি আরও বলেন, সংবাদমাধ্যম বর্তমান সময়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। সমাজের সকল প্রকার সমস্যা,দুর্নীতি ও অসঙ্গতি তুলে ধরে সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে থেকে সাধারণ মানুষের অধিকার রক্ষায় অব্যাহতভাবে কাজ করে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে আমি পত্রিকাটির উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করছি।

ইমাম ইমু (সাধারণ সম্পাদক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির-চবিসাস) বলেন, প্রতিষ্ঠার ৪ বছর পূর্ণ করে পঞ্চম বর্ষে পদার্পণ করেছে অনলাইন পোর্টাল ডেইলি দর্পণ। চার বছর ধরে পত্রিকাটির সঙ্গে যারা এর উৎকর্ষ সাধনে কাজ করে গেছেন, তাদেরকে আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এই পোর্টালটি জনসম্পৃক্ততার মাধ্যমে নিজেদের স্বাতন্ত্র্য বজায় রেখে চলেছে। সর্বস্তরের পাঠক যেভাবে এটিকে আপন করে নিয়েছেন তা সত্যিই গর্বের ও প্রশংসার। এ কারণেই নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়েও অনলাইন গণমাধ্যমটি সমহিমায় উজ্জ্বল।

তিনি আরও বলেন, আমার প্রত্যাশা থাকবে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রেখে দেশ ও জনগণের কল্যাণে নির্ভীকতার সঙ্গে বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যনির্ভর সংবাদ পরিবেশন করে যাবে ডেইলি দর্পণ। দেশের শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে অনলাইন সংবাদমাধ্যম হিসাবে ডেইলি দর্পণের যে ভূমিকা রাখার সুযোগ রয়েছে, তা অক্ষুণ্ন রেখে ইতিবাচক পরিবর্তনের মাধ্যমে জাতির সার্বিক কল্যাণের সারথি হবে। ডেইলি দর্পণ তার লক্ষ্যে অবিচল থেকে আরও অনেক দূর এগিয়ে যাবে-আমি এই কামনা করি।

মোহাম্মদ ইলিয়াস (যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, চবি ছাত্রলীগ) বলেন, ‘ডেইলি দর্পণ’ এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমি এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই। পত্রিকাটি গত ৪ বছর ধরে বস্তুনিষ্ঠতা ধরে রেখেছে। কখনও অন্যায়ের সঙ্গে আপস করেনি। সৎ, দায়িত্বশীল ও সাহসী সাংবাদিকতা এ পত্রিকার বড় শক্তি।

এ জন্য ডেইলি দর্পণ পাঠকের আস্থা অর্জন করেছে। দেশ, জাতি, মাটি, মানুষ আর মুক্তিযুদ্ধের কথা বলায় আমি ডেইলি দর্পণকে বিশেষ ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমি ডেইলি দর্পণের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করি।

রেদ্ওয়ান আহমদ (সাধারণ সম্পাদক, চবি তরুণ কলাম লেখক ফোরাম শাখা) বলেন, সত্যের সন্ধানে পথচলা জাতীয় অনলাইন পত্রিকা ডেইলি দর্পন ৪ বছরে পদার্পণ করায় আমি আনন্দিত। সেজন্য, পত্রিকাটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের মধ্য দিয়ে ডেইলি দর্পন পাঠকদের মন জয় করবে বলে আমি আশাবাদী। তাছাড়া, জনসচেতনতায় ডেইলি দর্পন ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস। সর্বোপরি, সমাজ ও রাষ্ট্রের উন্নয়নে ডেইলি দর্পনের ভূমিকা প্রশংসনীয় হয়ে উঠুক, এটাই কামনা। আমি বিশ্বাস করি, ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা ও উদীয়মান লেখকদের লেখালেখির সুযোগ করে দিয়ে তারুণ্যের শক্তিতে রাষ্ট্রের উন্নয়ন-বিনির্মাণে পত্রিকাটি তার ইতিবাচক ভূমিকা অব্যাহত রাখবে। পত্রিকাটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে পত্রিকার মালিকপক্ষসহ সম্পাদক, প্রকাশক, সাংবাদিক, লেখক, শুভানুধ্যায়ীবৃন্দকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই।

সাজেদা আক্তার (শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ) বলেন, চতুর্থ বছরে পদার্পণ করায় ‘ডেইলি দর্পণ’কে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। সমাজের অসঙ্গতি ও বৈষম্য তুলে ধরে পথচলা অব্যাহত রাখতে পারায় ডেইলি দর্পণের সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ। পাঠকের কাছে এই পত্রিকার গ্রহণযোগ্যতা অটুট থাকুক সবসময়। পত্রিকাটির উত্তরোত্তর সাফাল্য কামনা করি।

ডেইলি দর্পণের আপোষহীন এবং সাহসী সাংবাদিকতার চার বছরে পদার্পনে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) সংশ্লিষ্টজনদের শুভেচ্ছা :

ইয়ামিন মাসুম (সহকারী প্রক্টর ও
প্রভাষক, ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগ) বলেন, “আংশিক নয় পুরো সত্য” স্লোগানকে ধারণ করে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসের ১৪ তারিখে যাত্রা শুরু করে আলোচিত সংবাদ পোর্টাল ডেইলি দর্পণ। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে ইতোমধ্যে পাঠক হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে। পরিণত হয়েছে সত্য ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রাপ্তির বিশ্বস্ত ঠিকানায়। ক্যাম্পাসের শিক্ষা ও গবেষণা, সহ- শিক্ষামূলক কার্যক্রম এবং অন্যান্য সার্বিক চিত্র নিরপেক্ষ ভাবে উপস্থাপন করছে ডেইলি দপর্ণ। চতুর্থ বর্ষে পদার্পণ শুভ হোক।

আবু হুরায়রা (সভাপতি, ইবি প্রেস ক্লাব) বলেন, জনপ্রিয় অনলাইন পোর্টাল ডেইলি দর্পণ সফলতার সাথে ৩ বছর পেরিয়ে ৪ বছরে পা দিল। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে পত্রিকাটির সাথে যুক্ত সকল সাংবাদিকক ও পরিচালনা পর্ষদের ব্যক্তিদের আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি। পাশাপাশি এর পাঠক ও শুভাকাঙ্ক্ষীদেরও বর্ষপূর্তির শুভেচ্ছা। সংবাদ পরিবেশনে ডেইলি দর্পন সবসময় বস্তুনিষ্ঠতা বজায় রাখার চেষ্টা করে। যার কারণে প্রতিষ্ঠার অল্প সময়ের মধ্যে এটি পাঠকদের কাছে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। আশা করি ভবিষ্যতেও তাদের এ ধারা অব্যাহত থাকবে। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতাই হোক ডেইলি দর্পণের পথচলা।’

ইমানুল সোহান (সভাপতি, ছাত্র ইউনিয়ন, ইবি সংসদ) বলেন, গণমানুষের কথা ও রাষ্ট্র কিংবা সমাজের অসঙ্গতিকে তুলে ধরে গণমাধ্যম। এজন্য এদেশের মানুষের আস্থার মানদণ্ড হয়ে দাঁড়িয়েছে সংবাদপত্র। আর সেই কাজটি করে যাচ্ছে ডেইলি দর্পন। অনলাইন পোর্টালটি অল্প কিছুদিনের ভিতরে পাঠকের মন জয় করতে সক্ষম হয়েছে। চর্তুথ বর্ষে পদার্পণে পত্রিকাটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে জানাচ্ছি আন্তরিক অভিনন্দন। ডেইলি দর্পন সমাজের আলোবর্তিকা হয়ে এগিয়ে চলুক, এই প্রত্যাশা।

তাজমুল জায়িম (কোষাধ্যক্ষ, ইবি সাংবাদিক সমিতি) বলেন, দেশের অন্যতম জনপ্রিয় নিউজ পোর্টাল ডেইলি দর্পণের ৪র্থ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে পত্রিকাটির সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে জানাচ্ছি আন্তরিক অভিনন্দন। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে ডেইলি দর্পন যেভাবে পাঠকমহলে সমাদৃত হয়েছে। দেশ ও জনতার কাছে সমাজের স্বচ্ছ দর্পণ তুলে ধরার সেই ধারা অব্যাহত থাকুক। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ডেইলি দর্পনের উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি কামনা করছি।’

ইয়াসিরুল কবির সৌরভ (সাধারণ সম্পাদক, ইবি ছাত্রমৈত্রী) বলেন, সংবাদপত্র সমাজের দর্পণ। সংবাদপত্র বা গণমাধ্যমের দায়িত্ব হচ্ছে সমাজে ভালো মন্দ যা-ই ঘটুক তা জনগণের সামনে বস্তুনিষ্ঠ ও নির্মোহভাবে তুলে ধরা। যা সাহসিকতার সাথে তুলে সবসময় ধরছে আসছে ডেইলি দর্পণ। ডেইলি দর্পণের চার বছর পদার্পণে শুভেচ্ছা ও শুভকামনা রইল। জনগণের দর্পণের ভূমিকায় সকল বাঁধা উপেক্ষা করে আরো এগিয়ে যাক।

মুবাশশির আমিন (শিক্ষার্থী, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ) বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী মুবাশশির আমিন ডেইলি দর্পণকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘বর্তমান যুগের হলুদ সাংবাদিকতার প্রেক্ষাপটে ডেইলি দর্পণ সুষ্ঠু রিপোর্টের মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলে প্রতিদিনকার সকল সত্য খবরাখবর। আমি ব্যাক্তিগতভাবে অনলাইন সংবাদ পোর্টাল এর মধ্যে ডেইলি দর্পন নিয়মিত ফলো করি। চার বছরে পদার্পন করায় ডেইলি দর্পণকে জানাই প্রাণঢালা অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছা। যুগে যুগে এভাবে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে ডেইলি দর্পণ এগিয়ে যাক এটাই প্রত্যাশা।

ডেইলি দর্পণের আপোষহীন এবং সাহসী সাংবাদিকতার চার বছরে পদার্পনে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) সংশ্লিষ্টজনদের শুভেচ্ছা : 

তিন পেরিয়ে চার বছরে পদার্পণ করেছে দেশের জনপ্রিয় অনলাইন সংবাদপত্র ডেইলি দর্পণ। অনেক সংকট ও প্রতিকূলতার মধ্য থেকেও পথচলার এ তিন বছরে পাঠকঠের জন্য ডেইলি দর্পণ সাফল্য, উন্নয়ন, সমস্যা ও সম্ভাবনা তুলে ধরতে সাধ্যমতো চেষ্টা-শ্রম অব্যাহত রেখেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতির সভাপতি রেজওয়ান আহম্মেদ বলেন, ডেইলি দর্পণ নতুন ধারার একটি অনলাইন পোর্টাল, যেটি তার সত্যতা, বিশ্বাসযোগ্যতা ও বস্তুনিষ্ঠতার মাধ্যমে তাদের পাঠক ও শুভানুধ্যায়ীদের কাছে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। বাংলাদেশের ক্যাম্পাস জগতে এ অনলাইন পত্রিকাটি খুবই পরিচিত। ডেইলি দর্পণের তিন বছর পূর্তিতে আমি ও আমাদের খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির পক্ষ থেকে অনেক শুভকামনা থাকলো।
ডেইলি দর্পণের অগ্রযাত্রা সুন্দর হোক।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ যায়েদ বলেন, ডেউলি দর্পণের তৃতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সম্পাদক, প্রকাশকসহ সকল শুভ্যানুধায়ীকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। গত তিন বছর ধরে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছে পত্রিকাটি। তাদের সততা, বস্তুনিষ্ঠতা, ও ফ্যাক্টচ্যাকিং আমাকে খুবই মুগ্ধ করে, আগামীতেও এ ধারা অব্যাহত থাকবে বলে আশা রাখছি। ডেইলি দর্পণ অদূর ভবিষ্যতে আরো এগিয়ে চলুক, মানুষের ভরসা ও বিশ্বাসযোগ্যাতার প্রতীক হয়ে উঠুক।

মানব সম্পদ ব্যবস্থপনা ডিসিপ্লিনের ইশান খন্দকার বলেন, সংবাদপত্র, পত্রিকা বা খবরের কাগজের মূল কাজ পাঠকের কাছে সংবাদ পৌঁছে দেওয়া। একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় গণমাধ্যম হিসেবে সংবাদপত্রের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মুক্তবুদ্ধিচর্চার মাধ্যমে ডেইলি দর্পণ একটি অগ্রসরমাণ জাতি গঠনে নিয়ামক হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। জঙ্গিবাদ, অপসংস্কৃতি, মূল্যবোধের অবক্ষয়, ধর্মান্ধতা, মাদক, দুর্নীতি ও সন্ত্রাস রোধে গণমাধ্যম বিশেষ করে সংবাদপত্র বলিষ্ঠ পদক্ষেপ নিয়ে একটি নিষ্কলুষ সমাজ গঠনে অগ্রপথিকের ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে ।ডেইলি দর্পন প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বস্তুনিষ্ঠভাবে সংবাদ তুলে ধরার চেষ্টা করে আসছে। উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়ার পাশাপাশি অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর তুলে ধরে সবসময়ই আলোচনায় আছে ডেইলি দর্পন।

আমরা বিশ্বাস করি, ডেইলি দর্পণ আগামীতেও সব ক্ষেত্রে বস্তুনিষ্ঠ দায়িত্বশীল ও সাহসী ভূমিকা রাখবে।

ডেইলি দর্পণের তিন বছর পূর্তিতে নোয়াখালি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর, সাংবাদিক সমিতি (নোবিপ্রবিসাস) ও সাধারন শিক্ষার্থী এর পক্ষ থেকে “ডেইলি দর্পণ” এর সম্পাদক, প্রকাশক, প্রতিবেদক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, লেখক ও পাঠকসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়ে বস্তুনিষ্ঠ, নিরপেক্ষ ও সাহসী সাংবাদিকতা চর্চার আহ্বান করা হয়।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে নোবিপ্রবিসাসের সভাপতি আব্দুল কবীর ফারহান বলেন, ডেইলি দর্পণ এর তৃতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ডেইলি দর্পণের প্রকাশক, সম্পাদক, সাংবাদিক, পাঠক, সংবাদপত্রশ্রমিক ও সংবাদপত্র এজেন্টসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।

গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে এবং শোষণমুক্ত সমাজ গঠনে ডেইলি দর্পণ এর ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করি। মুক্ত গণমাধ্যম গণতন্ত্রকে সুসংগঠিত করে, সেই দিক থেকে ডেইলি দর্পণ আপসহীনভাবে দেশ ও জনগণের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। ডেইলি দর্পণ এই সাহসী ভূমিকার সঙ্গে আমরাও একান্তভাবে জড়িয়ে আছি। ভবিষ্যতে আমরা সবাই ডেইলি দর্পণ ধারাবাহিক সাফল্য কামনা করছি।

এছাড়াও শুভেচ্ছা বক্তব্যে নোবিপ্রবিসাসের সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত আহমেদ ফাহিম বলেন, প্রথমেই শুভেচ্ছা জানাই ডেইলি দর্পণ-কে পথচলার চার বছর পূর্ণ হওয়ায়। ঠিক চার বছর আগে ডেইলি দর্পণ আমাদের মাঝে এসেছে ‘সততাই শক্তি সুসাংবাদিকতায় মুক্তি’র নতুন বার্তা নিয়ে। সকল তথ্য আমাদের কাছে মুহূর্তেই যথাযথ শিরোনামে পৌঁছে দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ প্রকাশ করছি ‘ডেইলি দর্পণ’ এর সম্পাদকসহ উক্ত প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্ট সবাইকে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি বিভাগের শিক্ষার্থী নিয়াজ উদ্দিন বলেন, বর্তমানে যেভাবে অনলাইনে পোর্টালগুলো বিভিন্ন রংচং মাখিয়ে শিরোনাম দিয়ে খবর প্রকাশ করে সেদিক থেকে ডেইলি দর্পণ সবসময় নিজেকে আলাদা স্থান করে নিয়েছে। সঠিক এবং শুদ্ধ শিরোনাম দিয়ে মন জয় করেছে পাঠক সমাজের। একজন সাধারণ পাঠক হিসেবে আমি মনে করি গত এক বছরে সংবাদ পাঠকদের কাছে আস্থা এবং বিশ্বাসের একটা যায়গা তৈরি করতে পেরেছে জনপ্রিয় এই অনলাইন পোর্টাল। সবচেয়ে আকর্ষণীয় হলো ওয়েবসাইটের কাঠামো। যেখানে প্রতিটা বিষয় আলাদাভাবে বিভক্ত করে রাখা হয়েছে। যাতে একজন পাঠক খুব সহজেই প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো খুঁজে পায়। ডেইলি দর্পণ এগিয়ে যাক এই প্রত্যাশা করি

অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী কামরুন নাহার বলেন, আমি বেশ কিছু দিন ধরে ‘ডেইলি দর্পণ’ কে অনুসরণ করে আসছি। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় তারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে।চার বছর পদার্পণে ডেইলি দর্পনের প্রতি শুভকামনা রইল।

এছাড়াও ডেইলি দর্পণের সংশ্লিষ্ট সবাইকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়ে নোবিপ্রবি প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. আনিসুজ্জামান বলেন, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে ডেইলি দর্পণ এ দেশের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিকসহ সকল ক্ষেত্রে উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। আমার বিশ্বাস ‘ডেইলি দর্পণ’ অতীতের মতোই আগামীতেও সব ক্ষেত্রে বস্তুনিষ্ঠ দায়িত্বশীল ও সাহসী ভূমিকা রাখবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় এবং স্বাধীন সার্বভৌম বাংলার অবিসংবাদিত নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘সোনার বাংলা’ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে এগিয়ে যাবে জনপ্রিয় অনলাইন পোর্টাল ডেইলি দর্পণ এই প্রত্যাশা রাখছি।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page