ক্যাম্পাসলিড নিউজ

ইবিতে র‍্যাগিং ও মেডিক্যাল ভাঙচুর: অভিযুক্তদের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত কাল

ইবি প্রতিনিধি:

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) শৃঙ্খলা শেখানোর নামে নবীন শিক্ষার্থীকে র‍্যাগিং এবং মধ্যরাতে মাদকাসক্ত অবস্থায় মেডিক্যাল ভাঙচুরের ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আগামীকাল মঙ্গলবার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শৃঙ্খলা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে নিশ্চিত করেছেন প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসেন আজাদ।

তিনি বলেন, ‘আগামীকাল (৩ অক্টোবর) সকাল ১১টায় ছাত্র শৃঙ্খলা কমিটির একটি সভা আহবান করা হয়েছে। সভার আলোচ্যসূচীতে দুইটি বিষয় রাখা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্র ভাঙচুরের ঘটনা এবং HRM বিভাগের নবীন শিক্ষার্থীকে র‍্যাগিংয়ের অভিযোগের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটিদ্বয়ের তদন্ত প্রতিবেদনগুলো মূল্যায়ন ও পর্যালোচনা করা হবে। সভায় সকলের মতামত গ্রহণ করা হবে। তারপরে অভিযুক্তদের বিষয়ে একটা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে।’

জানা যায়, গত ২ সেপ্টেম্বর থেকে ৫ সেপ্টেম্বর দফায় দফায় হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের এক নবীন শিক্ষার্থীকে র‍্যাগিংয়ের অভিযোগ উঠে একই বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের কয়েকজন শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে।
অভিযুক্ত শিক্ষার্থীরা হলেন মিজানুর রহমান ইমন, শাহরিয়ার পুলক, হিশাম নাজির শুভ, সাদমান সাকিব আকিব, ও শেখ সালাউদ্দীন সাকিব। এ ঘটনার বিষয়ে ভুক্তভোগী তার পরিবারকে জানালে গত ৫ সেপ্টেম্বর ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর বাবা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার বরাবর অভিযোগ জানিয়ে একটি মেইল করেন। পরে ৯ সেপ্টেম্বর ক্যাম্পাসে উপস্থিত হয়ে ছেলেকে দিয়ে লিখিত অভিযোগপত্র জমা দেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তে ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলামকে আহবায়ক করে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

এর আগে গত ১০জুলাই মাদকাসক্ত অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রের জরুরী বিভাগে ভাঙচুর, অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভারের মারধর এবং কর্তব্যরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে অসদাচরণের অভিযোগ উঠে আইন বিভাগের ছাত্র রেজওয়ান সিদ্দিকী কাব্য, সালমান আজিজ ও আতিক আরমানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষ ও ভুক্তভোগীদের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ১৫ জুলাই অনুষ্ঠিত ছাত্র শৃঙ্খলা কমিটির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী অভিযুক্ত তিন শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। এবং ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তে ছাত্র-উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শেলীনা নাসরিনকে আহবায়ক করে তদন্ত কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

একটি সূত্র জানিয়েছে, তদন্তে উভয় ঘটনাতেই অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। তবে কি সুপারিশ করা হয়েছে তা জানা যায় নি। ইতোমধ্যে উভয় কমিটি তাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন।

এ বিষয়ে মেডিক্যাল ভাঙচুরের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক ড. শেলিনা নাসরীন বলেন, ‘তদন্ত প্রতিবেদন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জমা দিয়েছি। কাল ছাত্র শৃঙ্খলা কমিটির সভায় সেটা পর্যালোচনা করা হবে। এর বাইরে কিছু বলতে চাচ্ছি না।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page