ক্যাম্পাস

৬ দফা দাবিতে শারীরিক শিক্ষা বিভাগে সাধারণ শিক্ষার্থীদের গণস্বাক্ষর

মাভাবিপ্রবি প্রতিনিধি:

টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের(মাভাবিপ্রবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা ৬ দফা দাবি পূরণের দাবিতে শারীরিক শিক্ষা বিভাগে গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালন করেছে।

এইসময় শিক্ষার্থীরা তাদের দাবি সমূহ তুলে ধরে এবং দাবিসমূহ পূরণের জন্য ২ সপ্তাহের আল্টিমেটাম দিয়েছে।

শিক্ষার্থীদের দাবি সমূহঃ

১। মাঠ সংস্করণ। (ফুটবল এবং ক্রিকেটের জন্য আলাদা আলাদা মাঠ)২। মাঠের পরিচর্যার জন্য লোকবল বৃদ্ধি।
৩। পর্যাপ্ত পরিমান খেলার সরঞ্জাম সরবরাহ। (ফুটবল, ব্যাট ভলিবল, নেট, ইত্যাদি)
৪। সমতল এবং ঘাসযুক্ত মাঠ নিশ্চিতকরণ।
৫। ক্রিকেটের জন্য একটি মাটির এবং প্র্যাকটিসের জন্য শানযুক্ত নেট পিচ।
৬। প্রতিযোগীতা মূলক টুর্নামেন্ট আয়োজন করা। (ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল, ব্যাডমিন্টন ইত্যাদি)

চতুর্থ বর্ষে শিক্ষার্থী রাকিবুল ইসলাম রাব্বি জানান,আমরা দেখতাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শরীর চর্চা বিভাগ প্রতি বছর বিভিন্ন খেলাধুলার আয়োজন করে কিন্তু এই বছর এখন পযন্ত তাদের কোন কার্যকম দেখছি না।। আমাদের এই অন্ধকার জেনারেশন থেকে বের হতে খেলাধুলা এর বিকল্প নেই ।এর জন্যে আজকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের আগ্রহে আমাদের দাবিগুলো জমা দিতে আসছি এবং গণস্বাক্ষর নিয়ে আসছি।

চতুর্থ বর্ষের অন্য এক শিক্ষার্থী অয়ন চন্দ্র জানান,যেখানে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শরীরচর্চা বিভাগ সেমিস্টারের শুরুতে বিভিন্ন ধরনের টুর্ণামেন্টের(ক্রিকেট,ফুটবল,ব্যাটমিন্টন,কাবাডি,
ভলিবল,হ্যান্ডবল) আয়োজন করে সেখানে আমাদের শরীরচর্চা বিভাগ উদাসীন!
গতবছর থেকেই ফুটবল টুর্নামেন্ট হচ্ছে,হবে বলে আশারবাণীই শুধু শোনানো হলো কাজের কাজ নাই!এই শীতের সিজনে একটা ক্রিকেট টুর্নামেন্টে শুরুর জোর দাবী জানাই।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে শরীর চর্চা বিভাগের সাবেক পরিচালক ড. মো. নাজমুস সাদেকীন বলেন, “একাডেমিক ক্যালেন্ডার পরিবর্তন,সেমিস্টার ফাইনাল,জাতীয় নির্বাচন হওয়ায় জানুয়ারি মাসে আমি বিভিন্ন টুর্নামেন্ট শুরু করার পরিকল্পনা নিয়েছিলাম কিন্তু গত ১৪ জানুয়ারি ২০২৪ আমার পরিচালক পদের মেয়াদ শেষ হয়েছে। এই জন্য আমি টুর্নামেন্ট গুলো আয়োজন করতে পারি নাই। ”

উল্লেখ গত বছর ১৫ জানুয়ারি শরীর চর্চা বিভাগের পরিচালক হিসাবে অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. নাজমুস সাদেকীন যোগদান করেন। এই সময় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন টুর্নামেন্ট সফলভাবে আয়োজন করছিলেন।এছাড়া শিক্ষার্থীরা আন্ত:বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিয়োগিতা অংশগ্রহণ করেছিল।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page