ক্যাম্পাস

ইবিতে বঙ্গবন্ধু’র স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

ইবি প্রতিনিধি:

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৫২ তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার (১০জানুয়ারি) দিনটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শোভাযাত্রা, শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন, আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

দিনটি উপলক্ষে সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভবন চত্বর থেকে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালামের নেতৃত্বে শোভাযাত্রাটি শুরু হয়। পরে শোভাযাত্রাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ সড়কসমূহ প্রদক্ষিণ করে প্রধান ফটক সংলগ্ন ‘মৃতুঞ্জয়ী মুজিব’ ম্যুরালে গিয়ে শেষ হয়।

শোভাযাত্রা শেষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে ‘মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব’ মুর‌্যালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবদন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. মাহবুবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আলমগীর হোসেন ভুঁইয়া ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসান।

এছাড়াও শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, বঙ্গবন্ধু পরিষদ ও শাখা ছাত্রলীগ। শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষ ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার।

এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও প্রক্টর অধ্যাপক ড জাহাঙ্গীর হোসেন, শাপলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড মাহবুবর রহমান, বঙ্গবন্ধু পরিষদ সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড মাহবুবুল আরফীন, ছাত্র উপদেষ্টা ও বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. শেলীনা নাসরীন, বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী, শিক্ষার্থীবৃন্দ, শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাত ও সাধারণ সম্পাদক নাসিম আহমেদ জয়সহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

সংক্ষিপ্ত আলোচনায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, ‘২৬ মার্চ রাতে বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানে নিয়ে যাওয়া হয়। ২৯০ দিন কারাবন্দী শেষে ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি ভোর রাতে বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দেওয়া হয়। সেদিনই তিনি পাকিস্তান ইটারন্যাশনাল এয়ারলাইনসের বিশেষ ফ্লাইট ৬৩৫-এ লন্ডনের উদ্দশ্য রওনা হন। লন্ডনে প্রায় ২৬ ঘন্টা অবস্থান শেষে ১০ জানুয়ারি সকালে দিল্লির পালাম বিমানবন্দর পৌছান। পরে বেলা ১টা ৫১ মিনিট ঢাকা বিমানবন্দরে অবতরণ করেন।

তিনি আরো বলেন, ইতিহাস বানানো যায় না, ইতিহাস ঐতিহাসিকভাব সৃষ্টি হয়। তাই সঠিক ইতিহাস জানতে ও জানাতে আমাদের পরিশুদ্ধ আত্মা বা হৃদয়ের স্থপতি হতে হবে। তবেই সঠিক ইতিহাস জানা ও ভবিষ্যত ইতিহাস সৃষ্টি সম্ভব হবে।’

আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় উপ-উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষ ও ছাত্র উপদেষ্টা। পরে বঙ্গবন্ধুর আত্মার শান্তি ও মুক্তিযুদ্ধে শহীদ সকলের আত্মার শান্তি কামনায় দোয়া করা হয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page