ক্যাম্পাসলিড নিউজ

পাঁচ বছরেও অনার্স শেষ হলো না শামীমের

বেরোবি প্রতিনিধি:

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি’র) ইংরেজি বিভাগের ফেল করা ছাত্রকে পাশ দেখিয়ে ফলাফল প্রকাশ করার ঘটনায় জটিলতা নিরসন ও নতুন করে ফলাফল প্রকাশের দাবিতে আমরণ অনশন শুরু করেছে ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী শামীম ইসলাম। রবিবার (১৯ মার্চ) সকাল সাড়ে ১১টায় প্রশাসনিক ভবনের সামনে অনশন শুরু করে বিক্ষোভ করে শামীম ইসলাম ও ইংরেজি বিভাগের অন্যান্য সব শিক্ষার্থীরা।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ দপ্তর ও ইংরেজি বিভাগের একাধিক সূত্রে জানা যায় , বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর-এর ইংরেজি বিভাগের ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মো: শামীম ইসলামের বর্তমানে স্নাতক শেষ হয়েছে । কিন্তু ১ম বর্ষ ২য় সেমিস্টারের ল্যাব পরীক্ষায় সে উত্তীর্ণ হতে পারেনি। কিন্তু তৎকালীন প্রশাসনের আমলে তাকে প্রকাশিত ফলাফলে তাকে পাশ দেখানো হয়েছে। এতে সেই পরীক্ষার্থী মানোন্নয়ন পরীক্ষা দেয়নি। ৩য় বর্ষ ২য় সেমিস্টারে এসে সেই শিক্ষার্থীর ১ম বর্ষে ফেল করার বিষয়টি প্রকাশ পায়। এতে সেই শিক্ষার্থী শামীমের সনদপ্রাপ্তিতে জটিলতার সৃষ্টি হয়। এর প্রেক্ষিতে গত বছর ২৫ মে অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের ৪০তম সভার সুপারিশ ও একই বছরের ৩০ মে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের ৮৭তম সভার সিদ্ধান্তের মতে, চার সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে ৩টি পর্যবেক্ষনে ফলাফল যাচাইকারী উপ-পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সামসুল হকসহ একজন কর্মচারীর অসতর্কতা ও অসাবধানতার কারণ উল্লেখ করা হয় হয়। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের আলোকে গত ২০২২ সালের ৩১ মে অনুষ্ঠিত একাডেমিক কাউন্সিলের ৪২তম সভার সুপারিশক্রমে একই সালের ১৫ নভেম্বর অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের ৯১তম সভার অনুমোদনক্রমে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। বর্তমানে বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ও তদন্ত কমিটির আহবায়ক প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলমগীর চৌধুরী।

এদিকে দীর্ঘদিনেও প্রশাসনিক জটিলতায় এই সমস্যা সমাধান না হওয়ায় শিক্ষার্থীরা অনশন শুরু করেছে। তাদের দাবি, পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশে যে অনিয়ম হয়েছে তা দ্রুত সমাধান করতে হবে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী শামীম বলেন, আমি একজন নিম্নবিত্ত পরিবারের সন্তান। ৫ বছর হয়ে গেলো আমি আমার রেজাল্ট পেলাম না। আমার ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। যখন আমার সহপাঠীরা চাকুরি করতেছে। ঠিক সেই সময় দাড়িয়ে আমি বঞ্চনার শিকার হয়েছি। আমি কোনো চাকরিতে আবেদন করতে পারতেছি না। আমাকে ১ম বর্ষের ২য় সেমিস্টার এ উত্তীর্ণ দেখিয়েও আজ আমার রেজাল্ট পেলাম না। আমি আমরণ অনশন শুরু করেছি যতক্ষণ রেজাল্ট না পাই আমি এই অনশন চালিয়ে যাবো।

এ বিষয়ে উপাচার্য ড. হাসিবুর রশিদ এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে আমরা এই সমস্যার সমাধান করবো।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page