বিনোদন

রাজ্য এবং রাজের মঙ্গলের জন্যই আলাদা হয়ে গেলাম: পরীমণি

বিনোদন ডেস্ক:

ঢাকাই সিনেমার আলোচিত নায়িকা পরীমণি ও নায়ক শরিফুল রাজের সুখের সংসারে বইছে ঝড়। শুক্রবার রাতে ফেসবুকে এক পোস্টে পরীমণি নিজেই এই ঝড়ের আভাস দেন। পরদিন (শনিবার) রাতে নিজেদের মধ্যে মান-অভিমান ভুলে আবারও এক হন তারা। তবে নতুন বছরের প্রথম প্রহরে নায়িকার পোস্ট করা রক্ত ঝরার দুটি ছবি থেকেই বোঝা যায় সম্পর্কটা জোড়া লাগেনি। বরং দুজনের পথ আরও দূরে সরে গেছে। রবিবার বিকেলে পরীমণির ও রাজের আলাদা দুটি পোস্টও এই সম্পর্ককে আলাদা করে দিয়েছে।

শরিফুল রাজ, ছেলে রাজ্যকে কোলে নিয়ে জানিয়েছেন নতুন বছরের শুভেচ্ছা। সেখানে তিনি পরীর নামটিও মুখে আনলেন না।

অন্যদিকে পরীমণি জানালেন, রাজ্য এবং রাজের মঙ্গলের জন্যই আলাদা হয়ে গেছেন তিনি।

পরীমণি বলেন, ‘একটা সম্পর্কে পুরোপুরি সিরিয়াস বা খুব করে না চাইলে একটা মেয়ে, বাচ্চা নেয়ার মতো এতো বড় সিদ্ধান্ত নিতে পারে না কখনোই। আমার জীবনের সবটুকু চেষ্টা যখন এই সম্পর্কটাকে ঠিকঠাক টিকিয়ে রাখা তখনই আমাকে পেয়ে বসা হলো। যেন, শত কোটি বার যা ইচ্ছে তাই করলেও সব শেষে ওই যে আমি মানিয়ে নেই এটা রীতিমতো দারুণ এক সাংসারিক সূত্র হয়ে দাঁড়ালো।’

এই নায়িকার ভাষ্যে, ‘আমি জোর দিয়ে বলতে পারি আমাদের এই সম্পর্ক এত দিন আমার এফোর্টে টিকে ছিলো শুধু। কিন্তু বারবার গায়ে হাত তোলা পর্যায়ে পৌঁছালে কোন সম্পর্কই আর সম্পর্ক থাকে না। স্রেফ বিষ্ঠা হয়ে যায়।’

পরী আরও বলেন, “রাজ এখন শুধু আমার প্রাক্তন’ই না, আমার ছেলের বাবাও। তাই রাজ্যের বাবার সন্মান রাখতে পাবলিকলি আর বাকি কিছু বলছি না আমি। তবে আমার উপর তার আর তার পরিবারের কোন অসুস্থ আচরণ বা হার্মফুল কিছু করার চেষ্টা করলে আমি কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হবো।’

গণমাধ্যম কর্মীদের উদ্দেশ্যে এই নায়িকা বলেন, ‘সম্মানিত গণমাধ্যমকর্মী যারা রয়েছেন আপনারা নিশ্চয়ই আমার মানসিক অবস্থা বুঝতে পারবেন আশা করছি। আমাকে একটু সময় দিন। শারীরিকভাবেও আমি বিধ্বস্ত।’

উল্লেখ্য, গত বছরের ১৭ অক্টোবর গোপনে বিয়ে করেন ঢাকাই সিনেমার আলোচিত নায়িকা পরীমণি ও অভিনেতা শরিফুল রাজ। মাত্র সাতদিনের পরিচয়ে তারা বিয়ে করেছিলেন। চলতি বছরের ১০ জানুয়ারি সেই খবর প্রকাশ্যে আনেন তারা। একইদিন সন্তানধারণের বার্তাটিও দেন এ দম্পতি। এরপর ২২ জানুয়ারি পারিবারিক আয়োজনে বিয়ে সারেন। গত ১০ আগস্ট তাদের ঘর আলো করে এসেছে পুত্রসন্তান-শাহীম মুহাম্মদ রাজ্য।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page