ধর্ম

মসজিদগুলো যেন সামাজিক উন্নয়নের কেন্দ্র হয়ে ওঠে : সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভাণ্ডারী

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ইস্তাম্বুলের ঐতিহ্যবাহী গ্রিন মস্কে পবিত্র জুমার নামাজ আদায় করেন প্রিয় নবিজী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর ৩১তম বংশধর, ড. সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী। এসময় তিনি মসজিদটির স্থাপত্যশৈলী দেখে মুগ্ধ হন।

গত শনিবার (২১ এপ্রিল) থেকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে ‘International Scientific Conference’ এবং বিভিন্ন বিষয়ের ওপর আয়োজিত সিম্পোজিয়ামে বাংলাদেশের লাল সবুজের গৌরবের পতাকার প্রতিনিধিত্ব করছেন ড. সাইয়্যিদ সাইফুদ্দীন আহমদ আল হাসানী মাইজভাণ্ডারী।

তিনি এক বার্তায় বলেন, “তুরস্ক ইসলামি ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির ধারক ও বাহক। ইসলামি সংস্কৃতির প্রসার ঘটাতে পারলে, মুসলিমদের মাঝে নতুন এক জাতীয় চেতনা জাগ্রত হবে। আজ মুসলিমরা নিজেদের গৌরবময় ইতিহাস, ঐতিহ্যকে ভুলে বিজাতীয় সংস্কৃতির পেছনে ছুটছে। নিজস্ব সত্তা থেকে হারিয়ে যাওয়া আত্মঘাতী। এ ক্ষেত্রে সুফি, স্কলার, মুসলিম বিশ্বের শাসকদেরকে ইসলামি সংস্কৃতির প্রসারে দায়িত্বশীল হতে হবে। মসজিদগুলো যেন শুধু নামাজের জন্য সীমাবদ্ধ না থেকে, সামাজিক উন্নয়ন, সম্প্রীতি বৃদ্ধি ও জনসচেতনতা গড়ার কেন্দ্র হয়ে ওঠে। শিশুদেরকে অনেকে মসজিদে আসতে নিরুৎসাহিত করেন। অনেকে মসজিদে শিশুদের দুরন্তপনা দেখলে রাগ করেন। কিন্তু শিশুদেরকে অবশ্যই মসজিদ ও আল্লাহর অলিগণের দরবারে আনতে হবে। যাতে তাদের মাঝে শৈশব থেকেই মহান আল্লাহ ও প্রিয় নবিজী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) এর প্রতি ভালোবাসা জাগ্রত হয়।”

এ সকল অনুষ্ঠানে বিশ্বখ্যাত সুফি শেইখ, স্কলার, বুদ্ধিজীবী, গবেষক ও তুরস্ক সরকারের উচ্চ পর্যায়ের গভর্নর, কর্মকর্তাগণ অংশ নিয়েছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button

You cannot copy content of this page